Shahin

 

প্রয়োজনে গ্রাহকের সঞ্চয় ফেরত দিচ্ছে ব্র্যাক।

 
 
 
 

আর্থিক দুরবস্থা থেকে মুক্তি, উদ্ভাবনশীলতা ও টেকসই সমাধানের লক্ষ্যে ব্র্যাক মাইক্রোফাইন্যান্সের কার্যক্রম গত ১০ই মে থেকে পুনরায় সীমিত আকারে শুরু করা হয়। সঞ্চয়ী গ্রাহকদের প্রয়োজন অনুসারে যত দ্রুত সম্ভব সঞ্চয় ফেরত দেওয়া হচ্ছে এবং ঋণ বিতরণ কার্যক্রমও শুরু হয়েছে। করোনার এই দুর্যোগকালে ব্র্যাক তার সদস্যদের স্বাস্থ্য ঝুঁকি এড়াতে বিকাশের মাধ্যমে সঞ্চয় ফেরতের এক অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে।

রাজশাহী অঞ্চলের মোহনপুর এলাকার বিদিরপুর শাখা অফিসের স্থায়ী জমার সঞ্চয়ী গ্রাহক মোঃ শাহীন আলম। তিনি একজন কৃষিজীবী এবং ক্ষুদ্র পান ব্যবসায়ী। তার সঞ্চয়ের পুরো টাকা গত ১৯শে মে ফেরত দেওয়া হয়। ব্র্যাকের কাছে ১,৩০,০০০/- (এক লক্ষ ত্রিশ হাজার) টাকা সঞ্চয় করেছিলেন।

করোনাকালে যখন বেশিরভাগ আর্থিক প্রতিষ্ঠান, ব্যাংক, এনজিও তাদের কার্যক্রম বন্ধ রেখেছে, তখন ব্র্যাকের নিকট গচ্ছিত এই সঞ্চয় ফেরত পেয়ে শাহীন আলম ভীষণ খুশি। তিনি বলেন, “অনেক প্রতিষ্ঠান আছে যেখানে সঞ্চয় করলে ফেরত পেতে অনেক সময় লাগে, হয়রানির শিকার হতে হয়। ব্র্যাকের কাছে নিজের ব্যাবসার অসুবিধার কথা বলার একদিনের মধ্যেই আমার সঞ্চয় আমাকে ফিরিয়ে দেয়। সময়মতো এই টাকা না পেলে হয়তো আমি ব্যাবসা চালিয়ে যেতে পারতাম না। ছেলেমেয়ে নিয়ে সংসার চালানোও কঠিন হয়ে যেত। চিরদিন মনে রাখব ব্র্যাকের এই সেবার কথা।”

শাহীন আলম এখন ব্যাবসার অচলাবস্থা অনেকটাই কাটিয়ে উঠেছেন। কোনো আর্থিক প্রতিষ্ঠান বা এনজিওর কথা উঠলে তিনি অতি উৎসাহী হয়ে ব্র্যাকের সেবার কথা বলেন।